11 24 17

শুক্রবার, ২৪শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল) | ৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

Home - রংপুর বিভাগ - বাংলাবান্ধা-পঞ্চগড় মহাসড়কের দু’পাশে পাথরের স্তুপ, বাড়ছে দূর্ঘটনা

বাংলাবান্ধা-পঞ্চগড় মহাসড়কের দু’পাশে পাথরের স্তুপ, বাড়ছে দূর্ঘটনা

বাংলাবান্ধা-পঞ্চগড় মহাসড়কের দুধারে অবৈধভাবে পাথরের স্তুপ করায় প্রতিনিয়ত সড়ক দূর্ঘটনা বাড়ছে। বিশেষ করে কবি নজরুল বাইপাস সড়ক থেকে তেঁতুলিয়া চৌরাস্তা বাজার পর্যন্ত সুরু সড়কের দু’পাশে পাথরের স্তুপ করে ট্রাক-ট্রলি লোড আনলোডের কারণে সাধারণ পথচারী ও স্কুল শিক্ষার্থীদের চলাচলে নিদারুন দূভোর্গ পোহাতে হচ্ছে। এছাড়া মহাসড়কের দু’ধারে নিত্য নতুন পাথরের স্তুপ ও বালুর স্তুপ করা হলেও হাইওয়ে পুলিশ কিংবা সওজ বিভাগের কারো এবিষয়ে মাথা ব্যথা নাই।

ফলে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী জনসাধারণকে রীতিমত জিম্মি করে মহাসড়কের উপর অবৈধ পাথর-বালুর ব্যবসা করে আসছে। এছাড়া বাংলাবান্ধা জিরোপয়েন্ট থেকে পঞ্চগড় পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার মহাসড়কের পাগলি ডাংগী, গোয়ালগছ, তিরনহাট শ্রমিক ইউনিয়ন,খয়খাটপাড়া, রণচন্ডি বিজিবি ক্যাম্প,ডাকবদলী, বুড়াবুড়ী, মাগুড়মারী ক্যাম্পের আশপাশ,বোর্ড বাজার নামক স্থানে কৃষকেরা ধান, তিল মাড়াই করে পুরো সড়কে খড়-খুটা শুকানো সহ স্তুপ করে রাখছে। কোন স্থানে মরিচ, গম, খড় কুটরা শুকানো হচ্ছে। মহাসড়কে কৃষকের গৃস্থালি কার্জকর্ম সম্পাদনের প্রবণতা বাড়ার পাশাপাশি সড়ক দূর্ঘটনাও বাড়ছে।

এদিকে মহাসড়কের যত্রতত্র পাথর-বালুর স্তুপ, ট্রাক-ট্রলির মালামাল লোড-আনলোডের কারণে তেঁতুলিয়া কাজী শাহাবুদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, তেঁতুলিয়া পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, তেঁতুলিয়া ডিগ্রী কলেজ, কালান্দিগঞ্জ সিনিয়র মাদরাসা ও তেঁতুলিয়া দাখিল মাদরাসার ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষকমন্ডলী সহ জনসাধারণের অসহনীয় দূভোর্গ পোহাতে হয়। যে কারণে মহাসড়ক দিয়ে যাতায়াতের সময় নানামুখী সড়ক দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

তথ্যমতে-চলতি বছরে গত ৮ মাসে বাংলাবান্ধা-তেঁতুলিয়া মহাসড়কে প্রায় ডজন খানেক সড়ক দূর্ঘটনার প্রাণ গেছে কমপক্ষে ১০ জনের এবং অর্ধ শতাধিক গুরুত্বর আহত হয়েছে। এছাড়া অটোবাইক, অটো রিক্সা-ভ্যানের ছোট দূর্ঘটনা নিয়মিত ঘটে যার কোন পরিসংখ্যান নাই। মহাসড়কটি কৃষকের গৃস্থালি কাজকর্মের সময় অনেক কৃষক-কৃষানীর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া হালকা মোটযান ও মটরসাইকেল আরোহী দূর্ঘটনার শিকার হয়েছে।

এব্যাপারে তেঁতুলিয়া (ভজনপুর) হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. এনামুল হক প্রধান বলেন- কবি নজরুল স্মরণী থেকে তেঁতুলিয়া চৌরাস্তা বাজার পর্যন্ত সড়কটি দেখার দায়িত্ব তেঁতুলিয়া থানা পুলিশের। এছাড়া মহাসড়কের দু’ধারে অবৈধ স্থাপনা সরানোর ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশ নিয়মিত কাজ করছে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শাহীন বলেন- প্রতি মাসের আইন-শঙ্খলা সভায় সড়ক-মহাসড়কের বিষয়টি আলোচনায় আসে এবং উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার মাইকিং করে পাথর-বালুর স্তুপ সরানোর কথা বলা হয়েছে। কিন্তু একশ্রেণির ব্যবসায়ীরা বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না।

এবিষয়ে মুঠোফোনে পঞ্চগড় সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী-দেব দেয়াল সরকার-এর কাছে জানতে চাইলে বলেন- জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একাধিকবার মাইকিং ও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করার পরও মহাসড়কের দু’ধারে অবৈধভাবে পাথর-বালুল স্তুপ ও ট্রাক-ট্রলি লোড-আনলোড বন্ধ হচ্ছে না। তাই জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্টেট নিয়ে খুব শিঘ্রই সড়কের দু’ধারে অবৈধ পাথর-বালু স্তুপকারী ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করার প্রস্তুতি চলছে।

সচেতন মহল তেঁতুলিয়া-বাংলাবান্ধা মহাসড়ক ভায়া পঞ্চগড় মহাসড়কে দূর্ঘটনা প্রতিরোধে রাস্তার দুপাশে পাথরের স্তুপ অপসারণসহ কৃষকের খড়-খুটা রাস্তায় শুকানো বন্ধের ব্যাপারে প্রশাসনের আশু দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য