11 24 17

শুক্রবার, ২৪শে নভেম্বর, ২০১৭ ইং | ১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল) | ৫ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

Home - দিনাজপুর - বিরলে বিষ মুক্ত লাউ চাষ করে সাফল্য

বিরলে বিষ মুক্ত লাউ চাষ করে সাফল্য

সুবল রায়, বিরল (দিনাজপুর) থেকেঃ দিনাজপুরের বিরলে হাইব্রীড মেরীনা জাতের লাউয়ের চাষ ব্যাপক সাফল্যের সারা জাগিয়েছে। কৃষকরা এই জাতের লাউ চাষ করে লাভের মুখ দেখছে। খরচ কম অথচ আয় বেশী, রাসায়নিক সার মুক্ত এই লাউ চাষে খরচ অনেক কম। আর যে কোন মাটিতে এ লাউ ভাল ফলন দেয়। রাসায়নিক নার লাগেনা, সম্পুর্ণ বিষাক্ত সার মুক্ত এই লাউ গছে সার হিসেবে ব্যবহার করা হয় গোবর, পচামাটি ও বাড়ীর ছাই।

এলাকার ইতি বেগম বণ্যা পরবর্তিতে লাউ চাষের উদ্যোগ নেয়। সে হাইব্রীড মেরীনা জাতের লাউয়ের চাষ করে। এই পর্যন্ত তিনি ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার লাউ বিক্রি করেছে বলে জানায়। লাউ চাষ খুব লাভ জনক। প্রতিটি লাউ পাইকারী হিসাবে ২৫ থেকে ৩০ টাকায় লাউ ক্ষেত থেকে বিক্রি হয়। এতে তার অনেক লাভ হয়।

তিনি জানান, লাউ চাষে খাটনি কম এবং বেশী পুজি লাগেনা। বাণিজ্যিক আকারে এই জাতের লাউ চাষ করতে নারীরাই যথেষ্ট। সপ্তাহে এক থেকে দুই দিন পুরুষ শ্রমিক দিয়ে কাজ করিয়ে নিলেই চলে। রক্ষনা বেক্ষনার জন্য তেমন কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়না। রক্ষনা বেক্ষনার জন্য ঘেরা-বেরা দিলেই চলে। তেমন কোন বাড়তি খরচ নেই।

অন্যদিকে লাউয়ের চাষ বাড়ির উঠানে আঙ্গীনায় করলে বাড়ীর খাওয়া খাদ্যে বাড়তি খাবারের যোগান দেয়। লাউ যেমন মুল্যবান চাহিদার দিক থেকে তেমনি ভাবে লাউয়ের ডগা ও শাকের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। লাউয়ের ডগা ও শাক যেমন স্বুসাদু তেমনী পুষ্টিকর। ইতি বেগম লাউ ছাড়াও লাউয়ের শাক বিক্রি করে প্রচুর আয় করে। ইতি বেগমের দেখা দেখী বিরলে অনেক নারীরাই লাউ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে।

বিরল উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে বিরলে লাউ চাষ প্রদর্শনী মেলার আয়োজন করা হয়। এতে লাউ চাষ জনগণের মধ্যে ব্যপক আলোরণ সৃষ্টি করে। লাউ চাষের গ্রহন যোগ্যতা সাধারণ মানুষের মধ্যে উদ্যোগী হওয়ার সারা জাগায়। তার পর থেকেই বিরলের কৃষকরা ব্যপক হারে লাউ চাষে উদ্যোগ নেয় বলে জানায় আফজালুর রহমান। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা, বিরল, দিনাজপুর।

সম্প্রতি বণ্যার ক্ষতি পুশিয়ে নেওয়ার জন্য কৃষি অফিসের উদ্যোগে লাউ চাষে উদ্যোগী করা হয় কৃষকদের। লাউ চাষ সাধারণত নারীরাই করে থাকে। এজন্য চাই সমাজের পুরুষদের সব ধরণের সহযোগীতা। নারীরা কৃষির মাধমে স্বাবলম্বি হলে তার সফলতা ভোগ করবে পরিবার প্রধান পুরুষরাই। এর জন্য প্রধান ভুমিকা রয়েছে বিরল উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলামের। রাসায়নিক বিষাক্ত সার মুক্ত লাউ চাষ পুষ্টিকর ও লাভ জনক সহযেই চাষ যোগ্য এই লাউ অর্থনৈতিক ভাবে এলাকার কৃষকদের স্বাবলম্বি করে তোলে বলে জানান, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা। এই জন্য প্রশিক্ষন ও পরামর্শসহ সব ধরণের সহযোগীতা করে যাচ্ছেন কৃষি বিভাগের সর্ব স্থরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ।

লাউ একটি স্বুসাধু ও পুষ্টিকর সবজি হিসাবে জনপ্রিয়। তাই লাউ চাষকে ব্যপক হারে সারা দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য কৃষকদের সাহায্য সহযোগীতা ও সুধ মুক্ত ঋণ দিলে লাউ চাষ নারীদের মধ্যে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে এই প্রত্যাশা কৃষকদের।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য