12 10 18

সোমবার, ১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২রা রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Home - আন্তর্জাতিক - ডোকলামে যে কোনো চালাকির উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে

ডোকলামে যে কোনো চালাকির উপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে

ভূটান সীমান্তের কাছে ডোকলামে যে কোনো ঘটনা মোকাবিলায় তার বাহিনীর সদস্যরা প্রস্তুত আছেন বলে জানিয়েছেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল অভয় কৃষ্ণ।

App DinajpurNews Gif

ওই এলাকায় যে কোনো চালাকির ‘সুন্দর ও উপযুক্ত’ জবাব দেওয়া হবে বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

শনিবার ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় সদরদপ্তর কোলকাতার ফোর্ট উইলিয়ামে আয়োজিত ‘বিজয় দিবসের’ অনুষ্ঠানে অভয় এসব কথা বলেন বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জয়ের স্মরণে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পূর্বাঞ্চলীয় কমান্ড অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। ওই যুদ্ধে ভারত-বাংলাদেশের যৌথ বাহিনীর কাছে পরাজিত হয়েছিল পাকিস্তানের বাহিনী। এই যুদ্ধের মধ্য দিয়েই বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশ নামের নতুন রাষ্ট্রের অভ্যূদয় ঘটে।

ওই অনুষ্ঠানেই ভূটান সীমান্তের ডোকলামের কাছে চীনা সেনাবাহিনীর উপস্থিতি নিয়ে জানতে চান উপস্থিত সাংবাদিকরা।

চলতি বছরের জুনে ওই এলাকায় চীনের সড়ক নির্মাণকে কেন্দ্র করে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়েছিল।মালিকানা নিয়ে বিরোধপূর্ণ ওই এলাকাকে চীন ও ভুটান নিজ নিজ এলাকা বলে দাবি করে আসছে। এলাকাটি ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর সঙ্গে পশ্চিমাঞ্চলীয় মূল অংশের যোগাযোগের প্রধান সড়কপথের কাছে হওয়ায় এলাকাটি ভারতের জন্য কৌশলগতভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

ভারতের শঙ্কা, চীন ওই এলাকায় সড়ক নির্মাণ করলে তা তার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর জন্য হুমকি হয়ে উঠতে পারে।

বেইজিংয়ের সড়ক নির্মাণের প্রতিক্রিয়ায় দিল্লি ভুটানের পক্ষে অবস্থান নিয়ে ডোকলাম সীমান্তের সেনা পাঠালে উত্তেজনা শুরু হয়; দুই পক্ষের মধ্যে একদফা পাথর ছোড়াছুড়িরও ঘটনাও ঘটে।

সেপ্টেম্বরে সমঝোতার মাধ্যমে দুই দেশই সীমান্তের কাছ থেকে সৈন্য সরিয়ে নিলে ৭৩ দিন পর উত্তেজনার অবসান হয়।

নতুন করে ওই জায়গায় কিছু ঘটলে তার জন্য ভারতীয় বাহিনী প্রস্তুত কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে লেফটেন্যান্ট জেনারেল অভয় জানান, ভারতীয় বাহিনী যে কোনো দুর্বৃত্তপনার জবাব দিতে প্রস্তুত।

কারও নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, “আমরা পুরোপুরি প্রস্তুত, সক্রিয়; কেউ যদি সেখানে কোনো ধরণের চালাকি করার চেষ্টা করে তাহলে চমৎকার ও উপযুক্ত জবাব পাবে।”

ভারতীয় সেনাবাহিনী দুই রণক্ষেত্রে একসঙ্গে যুদ্ধ চালাতে সক্ষম কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে এ সেনা কর্মকর্তা বলেন, যে কোনো ঘটনার জন্য দেশ ‘সন্দেহাতীতভাবে’প্রস্তুত।

দুই দেশ সেনা সরিয়ে নিলেও ডোকলামের বিরোধপূর্ণ এলাকার কয়েকশ মিটারের মধ্যে চীনের সৈন্যরা অবস্থান করছে বলে ভারতীয় বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে ধারাবাহিকভাবে দাবি করা হচ্ছে।

ওই তথ্য সঠিক কি-না এমনটা জানতে চাইলে সেনা কর্মকর্তা অভয় বলেন, এ বিষয়ে অনেক কিছুই বলা হয়েছে, নতুন কিছু যুক্ত করার নেই।

“ভারতীয় বাহিনীর মনোবল সবসময়ই শক্ত; আমরা যে কারও দুর্বৃত্তপনার জবাব দিতে সবসময় প্রস্তুত; আমি বিশেষভাবে কারও নাম বলতে চাই না। ভূখণ্ডের অখণ্ডতা আমাদের রক্তের মধ্যে প্রোথিত, সেই অখণ্ডতা রক্ষা করতে যা দরকার করবো,” বলেন ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় এ কমান্ডার।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য