10 22 18

সোমবার, ২২শে অক্টোবর, ২০১৮ ইং | ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১২ই সফর, ১৪৪০ হিজরী

Home - আন্তর্জাতিক - জুমাকে সরানোর পথে এএনসি

জুমাকে সরানোর পথে এএনসি

প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে দিতে জ্যাকব জুমাকে আনুষ্ঠানিক আহ্বান জানাবে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্ষমতাসীন দল আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস (এএনসি)।

App DinajpurNews Gif

আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না বললেও দলটির বিভিন্ন সূত্র স্থানীয় গণমাধ্যম ও বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এমনটিই জানিয়েছে বলে খবর বিবিসির।

জুমা এর আগে তার পদত্যাগের সম্ভাবনা নাকচ করেছিলেন। এএনসির শীর্ষ কর্মকর্তারা এখন তাকে প্রত্যাহারের সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করছেন, যা মঙ্গলবার সকালেও চলছিল।

এরপরও না সরলে ৭৫ বছর বয়সী জুমাকে পার্লামেন্টে আস্থা ভোটের মুখোমুখি হতে হবে, ভোটে তিনি সহজেই পরাজিত হবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

২০০৯ সালে ক্ষমতায় বসার পর থেকে দুর্নীতির নানান অভিযোগ পাশ কাটিয়ে আসছিলেন এএনসির এ সাবেক শীর্ষ নেতা।

দক্ষিণ আফ্রিকার গণমাধ্যমগুলো প্রেসিডেন্টের আসন্ন পদত্যাগকে ‘জেক্সিট’ হিসেবে ডাকা শুরু করেছে।

২০০৮ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট থাবো এমবেকি তার ডেপুটি জুমার সঙ্গে ক্ষমতার দ্বন্দ্বের জেরে পদত্যাগ করলে পরের বছরই জুমা দল ও রাষ্ট্রের হাল ধরেন।

এএনসি ১৯৯৪ সালে নেলসন ম্যান্ডেলার হাত ধরে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে ২০১৬-র স্থানীয় নির্বাচনেই সবচেয়ে কম ভোট পায় দলটি; আগামী বছরের সাধারণ নির্বাচনে স্বচ্ছ ভাবমূর্তি নিয়ে অংশ নেওয়ার লক্ষ্যে তারা এরই মধ্যে তাদের শীর্ষপদে ব্যাপক রদবদল এনেছে।

দুই দফা প্রেসিডেন্ট পদে থাকায় সাংবিধানিকভাবে জুমার ফিরে আসার কোনো পথ খোলা নেই বলেও বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

গত এক দশকজুড়ে জুমাকে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা নানান দুর্নীতির অভিযোগ মোকাবেলা করতে হয়েছে। জুমা বরাবরই সব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

ব্যক্তিগত বাড়ি নির্মাণে সরকারি কোষাগার থেকে ব্যয় হওয়া অর্থ ফেরত দিতে ব্যর্থতার দায়ে ২০১৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার সর্বোচ্চ আদালত জুমার বিরুদ্ধে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ আনে। গত বছর সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ১৯৯৯ সালে স্বাক্ষরিত এক অস্ত্র চুক্তিতে দুর্নীতি, জালিয়াতি, কালোবাজারি ও মুদ্রা পাচারের ১৮ ধরণের অভিযোগে জুমার বিচার শুরু করার নির্দেশ দেয়।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত ধনী ব্যবসায়ী গুপ্ত পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের কারণে জুমার জনপ্রিয়তাতেও ব্যাপক ধস নেমেছে।

গুপ্ত পরিবারের বিরুদ্ধে সরকারের ভেতর প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ উঠেছে। জুমা এবং গুপ্ত পরিবার উভয়েই এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

গত বছরের শেষদিকে এএনসির শীর্ষপদে সিরিল রামাপোসা নির্বাচিত হওয়ার পর ক্ষমতা থেকে সরে যেতে জুমার ওপর চাপ ধারাবাহিকভাবে বেড়েই চলছে।

মঙ্গলবার দিনের শেষভাগে এএনসি জুমাকে সরে যেতে আনুষ্ঠানিক অনুরোধ জানিয়ে পত্র দেবে বলে ধারণা গণমাধ্যমগুলোর, জুমা প্রত্যুত্তরে কি করবেন তা স্পষ্ট নয়।

এএনসির নির্বাহী কমিটির বৈঠক থেকে উঠে গিয়ে মঙ্গলবার সকালে রামাপোসা প্রেসিডেন্টের বাসভবনে যান বলে বিবিসি জানিয়েছে। সেখানে তিনি জুমাকে পদত্যাগ না করলে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে তাকে প্রত্যাহারে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়ে ফের এএনসির বৈঠকে ফিরে আসেন।

পদত্যাগের আনুষ্ঠানিক অনুরোধ পাশ কাটানো জুমার জন্য বেশ কঠিন হলেও, এই অনুরোধ মানতে আইনত তিনি বাধ্য নন; যে কারণে নিজ দলের আস্থা হারানোর পরও প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনে তার বাধা নেই।

এক্ষেত্রে জুমাকে দক্ষিণ আফ্রিকার পার্লামেন্টে আস্থা ভোটের মুখোমুখি হতে হবে; এরই মধ্যে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি ওই ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে।

এর আগে এ ধরণের আস্থা ভোটে বেশ কবার উৎরে গেলেও এবার সে সম্ভাবনা কম বলেই মনে করা হচ্ছে। আস্থা ভোটে পরাজিত হলে জুমা এবং তার দলের জন্য তা অমর্যাদার হবে বলেই ধারণা বিশ্লেষকদের।

সোমবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরোধীদলগুলো নির্ধারিত তারিখের আগেই আশু নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে।

“এএনসির যেই রাষ্ট্রকে নেতৃত্ব দিতে চান না কেন, তার উচিত দক্ষিণ আফ্রিকার জনগণের রায় নিয়ে আসা,” সাংবাদিকদের বলেন ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্সের নেতা মুসি মাইমানে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য