12 16 18

রবিবার, ১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২রা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ৮ই রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

Home - রংপুর বিভাগ - গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জ উপ-নির্বাচনে জাপা প্রার্থী বিজয়ী

গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জ উপ-নির্বাচনে জাপা প্রার্থী বিজয়ী

আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধা-১, সুন্দরগঞ্জ শূণ্য আসনের দ্বিতীয় দফা উপ-নির্বাচনে ৭৮ হাজার ৯শ ২৬ ভোট পেয়ে বেসরকারি ফলাফলে জাতীয় পার্টি (জাপা) মনোনীত প্রার্থী ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী (লাঙ্গল) বিজয়ী হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত আফরুজা বারী (নৌকা) পেয়েছেন ৬৮ হাজার ৯শ ১৩ ভোট।

App DinajpurNews Gif

মঙ্গলবার রাত ৯টায় নির্বাচনের জন্য দায়িত্ব প্রাপ্ত সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও গাইবান্ধা জেলা নির্বাচন অফিসার মাহবুবুর রহমান ফলাফল ঘোষণা দেন। সুন্দরগঞ্জ পৌরসভাসহ ১৫টি ইউনিয়নের ১শ’ ৯টি কেন্দ্রে ৩লাখ ৩৮ হাজার ৫শ ৫৬ জন ভোটারের মধ্যে ৪৪ দশমিক ৪৮শতাংশ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন।

এ নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বে ছিলেন-২২ জন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও ৩ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটসহ ২৫ জন ম্যাজিস্ট্রেট। এছাড়া, ৭ প্লাটুন বিজিবি, ৪০ টীম র‌্যাব, ৪টি স্তরে ১ হাজার ৮শ’ পুলিশ, ৩টি স্তরে আনসার ও ভিডিপির সদস্য রয়েছেন-১ হাজার ৬শ’ ৭৬ জন। এছাড়া, ভোট গ্রহণে নিয়োজিত রয়েছেন প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রিজাইডিং, সহকারী প্রিজাইডিং, পোলিং, সহকারী পোলিং অফিসার। নির্বাচনে নির্ধারণকৃত ৮৩ টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে অতিরিক্ত প্রশাসন মোতায়েন করা হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত এ আসনের প্রথম দফা উপ-নির্বাচনে নির্বাচিত সরকার দলীয় সাংসদ- গোলাম মোস্তফা আহমেদ সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ঢাকাস্থ সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একই বছরের ১৯ ডিসেম্বর সকালে মারা যান। ফলে দশম জাতীয় সংসদ মেয়াদেই এ আসনের দ্বিতীয় দফা উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে, ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের উত্তর সাহাবাজ গ্রামের মাষ্টারপাড়াস্থ নিজ বাসভবনে আততায়ীদের গুলিতে আহত হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এ আসনের সরকার দলীয় সাংসদ মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। ফলে প্রথম দফায় অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন- মরহুম গোলাম মোস্তফা আহমেদ।

ভোট গ্রহণকালে উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের গোপাল চরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে সন্দেহজনক ভাবে উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আলম রেজা, উক্ত ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আশেক আলী জিকু, স্বেচ্ছা সেবকলীগ নেতা জুয়েল রানা ও দুদু মিয়া নামে ৪ সন্দেহ ভাজনকে আটক করে প্রত্যেকের ৫হাজার করে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এছাড়া, সন্ধ্যা থেকে ফলাফল ঘোষণার শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত উপজেলা পরিষদের প্রধান ফটকের সামনের রাস্তায় নৌকা ও লাঙ্গল প্রতীকের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের মাঝে কয়েক দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ নির্বাচনে ৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। অপর ২ প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন- গণফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী এম শরিফুল ইসলাম- (মাছ) ৭শ ১০ ও এনপিপি মনোনীত প্রার্থী জিয়া জামান খাঁন- (আম) পেয়েছেন ৪শ ১৭ ভোট।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার- এসএম গোলাম কিবরিয়া ৪ নেতা-কর্মীর জরিমানা করার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আইন শৃঙ্থলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে প্রশসনের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালানো হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য